BIOS এবং CMOS এর মধ্যে পার্থক্য

0

আমরা অনেকেই BIOS এবং CMOS কে একই মনে করি।কিন্তু তারা এক জিনিস নয়।কিন্তু তারা একই সাথে কাজ করে। BIOS হল মাদারবোর্ডের একটি কম্পিউটার চিপ যা উপরের ছবি তে দেখানো হয়েছে।এই চিপে কিছু প্রোগাম দেয়া থাকে যা কম্পিউটারের বিভিন্ন উপাদানকে নিয়ন্ত্রন করে।এই উপাদান গুলো হল ভিডিও কার্ড,সাউন্ড কার্ড,নেটওয়ার্ক কার্ড,ইউএসবি পোর্ট,ফ্লপি ড্রাইভ,হার্ডওয়্যার ইত্যাদি।BIOS ছাড়া কম্পিউটার তার বিভিন্ন উপাদানের সাথে যোগাযোগ করতে পারবে না।ফলে কম্পিউটার কাজ করতে পারবে না।

Bios-CMOS-1

CMOS ও হল মাদারবোর্ডের একটি চিপ।কিন্তু আরো ভাল করে বলতে গেলে এটি একটি র‌্যাম চিপ।এই চিপ কম্পিউটারের বিভিন্ন উপাদান সর্ম্পকে তথ্য সংরক্ষন করে এবং তাদের সেটিংস সংরক্ষন করে। সাধারন র‌্যাম চিপ তাদের মধ্যে সংরক্ষিত তথ্য হারিয়ে ফেলে যখন তাদের বিদ্যৎ সাপ্লাই দেয়া হয় না।কিন্তু CMOS চিপ তথ্য সংরক্ষন করার জন্য একটি CMOS ব্যাটারি ব্যাবহার করে।যদি ব্যাটারিটি সরিয়ে নেয়া হয় তাহলে কম্পিউটারের সকল সেটিংস মুছে যাবে।উদাহরনস্বরুপ যদি এই ব্যাটারিটি সরিয়ে নেয়া হয় তাহলে কম্পিউটারের তারিখ এবং সময় আগের প্রস্তুত করার সময় যা ছিল তাতে ফিরে যাবে।

কম্পিউটার বুট নেবার সময় BIOS চিপে যে প্রোগাম থাকে তা CMOS চিপ থেকে তথ্য সংগ্রহ করে।কম্পিউটার চালু হবার সময় স্টার্ট স্ক্রিনে(যাকে পোস্ট স্ক্রিন বলা হয়) যে অপশনটি দেখায় enter the BIOS or CMOS setup।এটিতে ঢুকলে আমরা CMOS সেটআপে ঢৃকলাম।BIOS চিপ এবং প্রোগ্রাম সরাসরি ইউজার পরিবর্তন করতে পারে না।

Comment

comments

Comments are closed.